মেনু নির্বাচন করুন

বিনোদিয়া ফ্যামিলি পার্ক

 

  যশোর শহর থেকে মাত্র ৫ কিলোমিটার দূরে সেনানিবাসের শানতলা নামক স্থানে এক মনোরম পরিবেশে পার্কটি অবস্থিত। ১৯৯৮ সালে লে: কর্ণেল ফয়েজ আহমেদ-এর উদ্যোগে পার্কটি প্রতিষ্ঠা করা হয়। পূর্বে একটি ছিল উন্মুক্ত ময়দান। পরে টিকিটের ব্যবস্থা করা হয়। বিনোদনের জন্য এখানে রয়েছে মিনি চিড়িয়াখানা, শিশুদের জন্য পার্ক, ছোট্ট নদী, রবীনহুডের ঘর, কৃত্তিম ঝরণা, ২টি খাবার স্টল প্রভৃতি। প্রতিদিন সকাল ৮টি থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত দর্শনার্থীদের জন্য খোলা থাকে পার্ক। শীতকালে ৫টা পর্যন্ত। কোন বন্ধের দিন নেই।
  ঈদ পূনর্মিলনী, স্কুলের অনুষ্ঠান, বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, পিকনিক, বৈশাখী মেলা প্রভৃতি অনুষ্ঠানের আয়োজন করা যায় এখানে। নিরাপত্তা বিধানের যাবতীয় ব্যবস্থা এখানে রয়েছে।
  যেভাবে যাবেন :
যশোর শহরের যেকোন স্থান হতে রিক্সা অথবা ইজি বাইকে করে পালবাড়ী মোড়ে আসুন। পালবাড়ী মোড় থেকে কিছু ইজিবাইক ৪/৫ জন যাত্রী নিয়ে চুরামনকাঠির দিকে যায়। আপনি এই ইজিবাইকে চেপে বসুন। মাত্র ৫/৭ মিনিটের পথ। ইজিবাইক চালক আপনাকে যথা স্থানে নামিয়ে দেবে। ভাড়া সর্বোচ্চ ৫/১০ টাকা।
যদি একত্রে ৪/৫ জন যান তাহলে ইজিবাইক রিজার্ভ করে যাওয়াটাই ভাল। আপনি ব্যক্তিগত গাড়ী অথবা রিক্সা ভাড়া করেও যেতে পারবেন।
  এরপর ২০০ গজ হাঁটলেই পৌঁছে যাবেন বিনোদিয়া পার্কে। পার্কের গেইট থেকে টিকিট সংগ্রহ করে প্রবেশ করুন বিনোদিয়া পার্কে।

প্রবেশ মূল্য:

বেসামরিক লোকদের জন্য (বড়দের ক্ষেত্রে) = ২০ টাকা
     "         "          "  (ছোটদের ক্ষেত্রে) = ১০ টাকা
সামরিক      "          "   (বড়দের ক্ষেত্রে) = ১০ টাকা
সামরিক      "          "   (ছোটদের ক্ষেত্রে)= --- টাকা

 
  পার্কিং মূল্য:
বাস ও ট্রাক = ১০০ টাকা
জিপ কার ও মাইক্রো বাস = ২০ টাকা
মটর সাইকেল = ১০ টাকা
  স্পট ভাড়া:
১০০০ হতে ৩৫০০ টাকা।
(রান্না ঘর, পানি ও কার্পেট সুবিধা আছে)

 
বিয়ে, গায়ে হলুদ, জন্মদিনসহ বিভিন্ন অনুষ্ঠান আয়োজনের সুব্যাবস্থা আছে। প্রতি ঘন্টার জন্য ৫০০ টাকা ফি দিতে হয়।

এছাড়াও আছে শীতাতাপ নিয়ন্ত্রিত কনফারেন্স রুম। যেখানে ৫০ হতে ৬০ জনের বসার ব্যবস্থা আছে।
  শিশুদের বিনোদনের জন্য চিড়িয়াখানা সহ বিভিন্ন ধরনের রাইডস আছে। প্রতিটির জন্য ১০ খেকে ২০ টাকার টিকিট প্রয়োজন হয়। 
  এরপরও যদি কোন তথ্যের প্রয়োজন হয় তাহলে বিনোদিয়া পার্ক কর্তৃপক্ষের সহযোগিতা নিতে পারেন।

কিভাবে যাওয়া যায়:

যশোর শহরের যেকোন স্থান হতে রিক্সা অথবা ইজি বাইকে করে পালবাড়ী মোড়ে আসুন। পালবাড়ী মোড় থেকে কিছু ইজিবাইক ৪/৫ জন যাত্রী নিয়ে চুরামনকাঠির দিকে যায়। আপনি এই ইজিবাইকে চেপে বসুন। মাত্র ৫/৭ মিনিটের পথ। ইজিবাইক চালক আপনাকে যথা স্থানে নামিয়ে দেবে। ভাড়া সর্বোচ্চ ৫/১০ টাকা। যদি একত্রে ৪/৫ জন যান তাহলে ইজিবাইক রিজার্ভ করে যাওয়াটাই ভাল। আপনি ব্যক্তিগত গাড়ী অথবা রিক্সা ভাড়া করেও যেতে পারবেন। এরপর ২০০ গজ হাঁটলেই পৌঁছে যাবেন বিনোদিয়া পার্কে। পার্কের গেইট থেকে টিকিট সংগ্রহ করে প্রবেশ করুন বিনোদিয়া পার্কে।


Share with :

Facebook Twitter